প্রচ্ছদ / ময়মনসিংহ / বিস্তারিত

মদনে কাউন্টার মাষ্টার নিয়োগকে কেন্দ্র করে হামলা,ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ

৬ জানুয়ারি ২০১৯, ৬:২০:৪৯

নেত্রকোনার মদন উপজেলার কাইটাইল বাজারে গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় শেখ কামাল স্মৃতি সংঘের সাথে শেখ রাসেল স্মৃতি সংঘরের মধ্যে  দূরপাল্লার বাস কাউন্টার মাষ্টার নিয়োগকে কেন্দ্র করে হামলা,ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনার অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে রাসেল সংঘের ইনচান ও এরশাদকে পুলিশ আটক করে মামলায় আসামি করেছে। রবিবার শেখ কামাল সংঘের খায়রুল বাদী হয়ে ১৮ জনকে আসামি করে মদন থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, কাইটাইল বাজারে শেখ কামাল ও শেখ  রাসেল  স্মৃতি সংঘের দীর্ঘদিনের বিরোধ  মীমাংসার লক্ষ্যে শনিবার সন্ধ্যায় এলাকার মাতাব্বরগণ ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ শেখ রাসেল স্মৃতি সংঘের বাস কাউন্টারে বসেন। মীমাংসায় শেখ রাসেল সংঘের শাহানূরকে পূনরায় কাউন্টার মাষ্টার নিয়োগ দিতে চাইলে  উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে শেখ কামাল সংঘের লোকজন ধারালো অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে কাউন্টার ঘেরাও করে সংঘের কার্যালয় ভাংচুর করে।

এ সময় শেখ রাসেল সংঘের  দুলাল,রফিকুল,হক মেম্বার,সুরুজ্জামান,মজিবুর আহত হয়। এদের মধ্যে দুলালকে মদন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।ওই রাতেই শেখ কামাল সংঘের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আরজু মিয়া,তার ভাতিজা খায়রুল ও দিলীপের বসত বাড়িতে হামলা চালিয়ে নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকারসহ দুই লক্ষাধিক টাকার মালামাল লটুপাট করে নিয়ে যায় শেখ রাসেল সংঘের সভাপতি হক মেম্বারসহ তার লোকজন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে।

অভিযুক্ত শেখ রাসেল সংঘের সভাপতি হক মেম্বার জানান  শেখ রাসেল স্মৃতি সংঘের কার্যালয়ে হামলা হলে আমাদেরকে পুলিশ উদ্ধার করে বাড়িতে পৌঁছে দেয়। অথচ মূল ঘটনা আড়াল করে  আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই মোঃ জাহেদ আলী জানান,এ ব্যাপারে এক পক্ষের একটি মামলা দায়ের করেছে। ইনচান ও এরশাদ নামের দুই আসামিকে রোববার সকালে  আটক করা হয়েছে। মামলাটি তদন্তাধীন রয়েছে।

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: