For Advertisement

750px X 80px

Call : +8801911140321

‘বাংলা ভাষাকে ধারণ করে রেখেছে বাংলাদেশ’

কারেন্ট নিউজ বিডি   ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২:৪০:৪৬

গর্গ চট্টোপাধ্যায়, ইন্ডিয়ান স্টাটিসটিক্যাল ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ও ভাষা অধিকার আন্দোলনের কর্মী। তিনি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মস্তিষ্ক বিজ্ঞানে পিএইচডি করছেন। থাকছেন কলকাতায়। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ঢাকা লিট ফেস্ট-২০১৮ উপলক্ষে বাংলাদেশে এসেছিলেন গর্গ চট্টোপাধ্যায়। এ সময় তিনি একটি জনপ্রিয় দৈনিককে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। তা হুবহু তুলে ধরা হলো-

প্রশ্ন : আপনাকে প্রথমেই যে প্রশ্নটা করতে চাই, এই যে বাংলাদেশ বাংলা ভাষাকেন্দ্রিক রাষ্ট্র, অন্যদিকে কলকাতা বা পশ্চিমবঙ্গ ভারতের একটা রাজ্য। আপনি কথা প্রসঙ্গে বলেছেন যে, কলকাতা তথা বাংলা পুঁজি ও হিন্দি ভাষার আগ্রাসনের শিকার। এখন এ কারণে পশ্চিমবঙ্গের বাংলা ভাষাভাষীরা কি এক ধরনের আঞ্চলিকতার মধ্যে পড়ে গেছে- আপনার কী মনে হয়?

For Advertisement

750px X 80px
Call : +8801911140321

গর্গ চট্টোপাধ্যায় : এ দেশে সংবিধান অনুযায়ী যেমন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ, আবার পশ্চিমবঙ্গে সংবিধান অনুযায়ী ভাষার ভিত্তিতে ঘটিত রাজ্য রেনডম না। পশ্চিমবঙ্গ ভাষাভিত্তিক রাজ্য ঠিক আছে। ভারতের রাজ্যগুলো অধিকাংশই ভাষার ভিত্তিতে ঘটিত, প্রেক্ষিত কোথাও অনুপস্থিত নয়। কিন্তু আবার পশ্চিমবঙ্গে বাংলা এবং বাঙালি কোণঠাসা হয়ে পড়ছে এটাও ঠিক। কারণ ওখানে পুঁজিবাজার, চাকরি বেশিরভাগই হিন্দিভাষী ও ইংরেজি জানাদের দখলে। এখন অর্থনীতির নিয়ন্ত্রণ যদি অন্য ভাষার মানুষের হাতে থাকে তবে আপনি কোনঠাসা হবেনই।

প্রশ্ন : আচ্ছা। তাহলে ওখানে বাংলা ভাষাভাষী লেখকরা কী ধরনের প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হচ্ছেন এর মাধ্যমে?

গর্গ চট্টোপাধ্যায় : তারা লিখছে। তবে পয়সাওয়ালা পাঠক ওই ধরনের বই পাচ্ছে না। কারণ তাদের মন ইংরেজি, হিন্দিতে চলে গেছে। আর এই শ্রেণী কিন্তু বাংলা ছাড়া বাঁচতে পারে। এইখানে যেহেতু অন্য ভাষার আগ্রাসন নেই তাই প্রেক্ষিত অনুযায়ী মূলধারার লোকজন মূলত বাংলা ভাষারই থেকে যাচ্ছে।

প্রশ্ন : এই যে ঢাকা লিট ফেস্ট নামে ইন্টারন্যাশনাল একটা ফেস্ট হচ্ছে। বাংলা ভাষার লেখক, অ্যাক্টিভিস্ট হিসেবে আপনি এই ফেস্টটাতে বাংলা ভাষার লেখকদের প্রাধান্য কতটা বলে মনে করেন?

গর্গ চট্টোপাধ্যায় : কলকাতায়ও দুটি লিট ফেস্ট হয়। সেই লিট ফেস্টের স্পন্সর বাঙালি না, বয়ানে বাংলা না, সেই লিট ফেস্টের দর্শন বাঙালি না, সেই লিট ফেস্টের ভবিষ্যৎ বাংলা না, সেই লিট ফেস্টের কল্পনা বাঙালি না। দিল্লিতে, বেঙ্গালুরুতে, চেন্নাইতে যে অর্থে লিট ফেস্ট হয়, কলকাতায়ও হচ্ছে ওই একই অর্থে। অর্থাৎ সেখানে যে মাটির প্রেক্ষিত সেইটা অনুপস্থিত। তার মানে যে, সেখানে বাংলায় সেশন হয় না তা নয়। প্রেক্ষিত আর সেশন হওয়ার তফাৎ আছে। এই যে সামনের যে ছেলেটা জিন্স প্যান্ট পড়েছে সে কিন্ত সাহেব হয়ে যায় নাই। কারণ তার প্রেক্ষিত বদল হয় নাই। ফলে এটা একটা আবরণ। আর ওখানে আমরা দেখি উল্টো। প্রেক্ষিতটাই নেই। এর মূল কারণ হচ্ছে সেখানে হিন্দি সম্রাজ্যবাদের চাপে ও নিপীড়নে বাংলা ও বাঙালি আত্মবিশ্বাস হারিয়েছে। আমরা যখন হিন্দি সাম্রাজ্যবাদ বলি- এক্ষেত্রে সম্রাজ্যবাদ কোনো একমুখী সাংস্কৃতিক আগ্রাসন না। এটা পুঁজির আগ্রাসন, এটা বাজারের আগ্রাসন, এটা রাষ্ট্রীয় আগ্রাসন- সব রকম। অর্থাৎ আজকে এইখানে ঢাকা লিট ফেস্টে এসে যে স্পন্সর দেখবেন, পর পর যে স্টল বা তাঁবুগুলো করেছে- এসব কিছুর মালিক বাঙালি। এর মানে এই নয় যে, বাংলাদেশে বিদেশি মালিকানার কোম্পানি নাই। কিন্তু মূল বিষয়টা বাঙালির হাতে। বাংলাদেশ বাংলা ভাষাকে ধারণ করে রেখেছে। পুঁজি, বাজার, চাকরি- এই তিনে আমরা যদি ত্রিভূজ বৃত্ত আঁকি, সেখানে বাঙালি মালিকানা, দাপট এবং আধিপত্য যথেষ্ট এখানে। এইটা পশ্চিমবাংলার ক্ষেত্রে ভয়ংকরভাবে অনুপস্থিত। অনুপস্থিত হবার কারণে প্রেক্ষিত বাংলা থাকে না, বাঙালি থাকে না। টাকা আছে, সুদৃশ্য ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল আছে, আমি হয়ত বলবো বাংলা একাডেমির থেকেও অনেক সুন্দর দেখতে জায়গাটা- সেই সেটিংয়ে লিস্ট ফেস্ট আছে। কিন্তু সেই লিট ফেস্টের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ ও তার বাঙালির কোনো হৃদয়ের সংযোগ নাই।

প্রশ্ন : আপনি বলতে চাইছেন যে, ঢাকা লিস্ট ফেস্টের সঙ্গে বাংলা ও বাঙালির হৃদয়ের সংযোগ আছে; ইন্টারন্যাশনাল এ ফেস্টের প্রেক্ষিত বাংলা- এটা  প্রতিফলিত হচ্ছে?

গর্গ চট্টোপাধ্যায় : সব জায়গায় প্রতিফলিত হচ্ছেই। যখন কোনো ধর্মীয় বা কোনো পলিটিক্যাল প্রোগ্রাম হয় কিংবা কোনো উৎসব হয়, তখন তাঁবুগুলোর যে ডিজাইনগুলো করা হয় এইখানে যে তাঁবুগুলো তাতে সেই একই ডিজাইনে করা হয়েছে। মানে এর বেশভূষা সবকিছুতেই বাংলাদেশ প্রতিফলিত হচ্ছে।

প্রশ্ন : এই ফেস্টে অনেক ইন্টারন্যাশনাল লেখক-শিল্পী এসেছেন, তাদের নিয়ে যেসব সেশন হচ্ছে তার বেশিরভাগই ইংরেজিতে। সেই সঙ্গে অনেক সেশন বাংলায়ও হচ্ছে। কিন্তু বাংলায় যে সেশনগুলো হচ্ছে, ইন্টারন্যাশনাল যারা অ্যাটেন্ড করেছেন তারা তো বাংলা জানেন না, আবার ওইসব সেশনে তাদের উপস্থিতিও থাকে না। তাহলে এই ফেস্টের মাধ্যমে কি আমাদের বাংলা লেখাপত্র তাদের কাছে পৌঁছাতে পারছেন?

গর্গ চট্টোপাধ্যায় : আমি বলবো, এই ধরনের লিট ফেস্টে যেখানে বাংলা আছে, ইংরেজি আছে, বাঙালি আছে, ইংরেজিতে লেখা লোকজন আছে- আসলে এই ধরনের জায়গায় দুটো জিনিস হয়- বাঙালি যায় বিশ্বের কাছে, আর বিশ্ব আসে বাঙালির কাছে। এই দুটো প্রক্রিয়া কিন্তু যুগপথ ঘটতে থাকে।

প্রশ্ন : বাংলা লেখাপত্র তাহলে কিভাবে ওদের সঙ্গে কমিউনিকেট করবে বা করতে পারে এই ফেস্টের মাধ্যমে?

গর্গ চট্টোপাধ্যায় : আসলে এক্ষেত্রে সবসময় যেটা হয়, সমাজে যে অংশ ইংরেজিতে পারদর্শী তারা এক্ষেত্রে সাঁকো হিসেবে কাজ করে। বৃহত্তর বাঙালি গণসমাজ এবং এই আন্তর্জাতিক বৃত্তটার মাঝে যে শ্রেণীকে আপনি গালি দিতে পারেন আবার চাইলে তাদের একটি সংযোগকারী সাঁকো হিসেবে দেখতে পারেন। এটা আপনার দৃষ্টিভঙ্গির ওপর নির্ভর করে। যে কারণে আমরা দেখতে পারছি, এখানে আগামী প্রকাশনীর পাশেই জামিল কমিক্সের স্টল। এই আগামী প্রকাশনী আর জামিল কমিক্সের কাছাকাছি থাকাটার মাধ্যমে কিন্তু এক ধরণের সংহতিও গড়ে উঠছে। (দৈনিক সমকাল থেকে নেয়া)

For Advertisement

750px X 80px

Call : +8801911140321

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: