প্রচ্ছদ / রংপুর / বিস্তারিত

For Advertisement

750px X 80px

Call : +8801911140321

প্রেমের সন্দেহে দুই বছর ধরে অন্ধকার ঘরে

কারেন্ট নিউজ বিডি   ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৬:১৭:২৯

মেয়েটিকে ছয় মাস ধরে গোসল করতে দেওয়া হয়নি । অন্ধকার ঘরে বন্দী থাকায় তার হাত পায়ের আঙুলগুলো গেছে কুঁকড়ে। জীর্ণ শীর্ণ শরীর, রক্তশূন্যতা, চর্মরোগসহ নানা সমস্যায় আক্রান্ত মেয়েটি।

প্রেমের সম্পর্কের সন্দেহে শাস্তি হিসেবে দুই বছরের বেশি সময় স্যাঁতসেঁতে অন্ধকার ঘরে স্নাতকপড়ুয়া ছাত্রীকে (২২) আটকে রেখেছিল তার পরিবার।মেয়েটির পিতার নাম মাওলানা রুস্তম আলী ।

For Advertisement

750px X 80px
Call : +8801911140321

ঘটনাটি ঘটেছে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ বিনোদতনগর ইউনিয়নের বাঘবিন্দুপুর গ্রামে।

খবর পেয়ে বুধবার (৬ ফেব্রুয়ারি ) সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মশিউর রহমান (ইউএনও) এর হস্তক্ষেপে মেয়েটিকে বন্দিদশা থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক বলছেন, যেকোনো মুহুর্তে মৃত্যু হতে পারত মেয়েটির। ছাত্রীটির মা জানান, কবিরাজ ও স্বপ্নে দেখা এক ব্যক্তির পরামর্শে মেয়েকে ওইভাবে ঘরে আবদ্ধ করে রেখেছিলেন।

প্রতিবেশী ও স্থানীয় বাসিন্দা জানান, ওই পরিবারের সঙ্গে বিরোধ আছে এমন এক পরিবারের ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের সন্দেহে প্রায় আড়াই বছর ধরে ওই ছাত্রীকে তার পরিবার আটকে রেখেছিল। বাড়িতে বিদ্যুৎ থাকলেও যে ঘরে মেয়েটিকে আটকে রাখা হয়, সেই ঘরে কোনো বিদ্যুৎ সংযোগ ছিল না। এমনকি ঘরের দরজা জানালা সব সময় তালা মেরে রাখা হতো।

সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য আশরাফুল ইসলাম কে বলেন, ওই ছাত্রীর চাচা দুই বছর আগে ছাত্রীকে আটক রাখার বিষয়টি জানান। তখন তিনি ওই ছাত্রীর বাড়িতে গেলে তার সঙ্গে কেউ কথা বলেননি। পারিবারিক ইস্যু দেখালে তিনি ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসেন।

মেয়েটিকে উদ্ধারে যাওয়া নবাবগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আতিকুল ইসলাম জানান, উদ্ধারে গেলে প্রতিবেশীরা তাকে জানায় যে দুই বছরের বেশি সময় ধরে ওই ছাত্রীকে আটকে রাখা হয়েছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রতিবেশী জানান, ওই পরিবারের সঙ্গে বিরোধ আছে এমন পরিবারের এক ছেলের সঙ্গে ওই মেয়ের প্রেমের সম্পর্কের সন্দেহে তাকে শাস্তি দিতে ঘরে আটকে রাখা হয়েছিল ।

For Advertisement

750px X 80px

Call : +8801911140321

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: