প্রচ্ছদ / অর্থনীতি / বিস্তারিত

বাণিজ্য মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি

‘বাণিজ্য মেলায় ২০০ কোটি টাকার রফতানি আদেশ পেয়েছে বাংলাদেশ’

৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২:৫৮:৫৪

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, গত বছর বাণিজ্য মেলার ২৩তম আসরে ১৬৫ কোটি ৯৬ লাখ টাকার রফতানি আদেশ পেয়েছে বাংলাদেশ। আর এ বছর বাংলাদেশি কোম্পানিগুলো প্রায় ২০০ কোটি টাকা রফতানি আদেশ পেয়েছে। সে হিসেবে এ বছর রফতানি আদেশ বেড়েছে ৩৫ কোটি টাকা।

শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) বাণিজ্য মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

টিপু মুনশি বলেন, প্রতিবছরই আমাদের মেলার ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে, তাতে পূর্বাচলে স্থায়ী বাণিজ্যমেলা প্রাঙ্গণেও এ ধরনের মেলা আয়োজন করা সম্ভব নয়। একইসঙ্গে আজ থেকে ১০ বছর পরে এখানে এ মেলা করা যাবে কি-না তা নিয়ে এখন থেকেই ভাবতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, বাণিজ্যমেলায় এবার বিক্রি ও রফতানি আদেশ ভালো হয়েছে। আমাদের মেলার চাহিদা যেভাবে বাড়ছে, এখানে মেলা করতে হিমশিম খেতে হয়। আগামীতে পূর্বাচলে ৩০ একর জায়গায় এ মেলা আয়োজন করা সম্ভব কি-না, তা এখন থেকেই ভাবতে হবে। আগামী ১০ থেকে ১৫ বছর পর মেলার চাহিদা আরও বাড়বে। কারণ পূর্বাচলে ৩০ একর জায়গা এ মেলার জন্য অপ্রতুল। তবে সেখানে সারা বছর অন্যান্য মেলা চলবে। আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা সেখানে আয়োজন করা যাবে না। তাই এখন থেকে আমাদের পদক্ষেপ নিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, এবারের মেলায় সবচেয়ে লক্ষ্যণীয় বিষয় হলো আমাদের দেশি পণ্যের চাহিদা বেড়েছে। বায়াররা আমাদের পণ্যে আকৃষ্ট হচ্ছে। এর ফলে আগামীতে আমাদের আমদানি কমে যাবে। এছাড়া রফতানিতে আমাদের পোশাক খাতের নির্ভরতা কমিয়ে অন্যান্য পণ্য রফতানি বাড়াতে হবে। পাশাপাশি চিন্তা ও চেতনায় আমাদের আরও এগোতে হবে।

এসময় অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি তোফায়েল আহমেদ, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব এস এম রেজওয়ান হোসেন এবং রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান বিজয় ভট্টাচার্যসহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, গত ৮ ফেব্রুয়ারি বাণিজ্যমেলা শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ব্যবসায়ীদের অনুরোধে সময় একদিন বাড়ায় আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষ রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। এবারের মেলায় ১২ ক্যাটাগরিতে ৪২টি প্যাভিলিয়ন ও স্টলকে পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, পূর্বাচলে ৩০ একর জমিতে চায়না কোম্পানি বাণিজ্যমেলার স্থায়ী জায়গায় নির্মাণ কাজ করছে। হয়তো একটু সময় লাগবে। এবারের মেলায় রফতানি আদেশ ভালো হয়েছে। গতবার আমাদের রফতানি হয়েছিল ৪১ বিলিয়ন ডলার। এবার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪৫ বিলিয়ন ডলার। ২০৪১ সালে আমাদের রফতানি হবে ৬০ বিলিয়ন ডলার। সবক্ষেত্রে বাংলাদেশ ভালো করছে।

তিনি বলেন, গত ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের মধ্য দিয়ে দেশের মানুষ প্রমাণ করে দিয়েছে তারা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে। তাই এখন অনেক ভালো লাগে যখন সংসদে দেখি কোনো যুদ্ধাপরাধী নেই, কোনো খুনি নেই। আমরা সবাইকে সঙ্গে নিয়েই সামনে দিকে এগিয়ে যেতে চাই। ব্যবসার ক্ষেত্রে আমাদের সমস্যাগুলো একসঙ্গে বসে সুন্দরভাবে সমাধান করতে সরকার আন্তরিক।

রেজওয়ান হোসেন বলেন, এবার মেলায় অংশগ্রহণকারীদের সংখ্যা বেড়েছে। আমাদের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ হলো ভিশন ২০২১, ২০৪১ ও ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়ন করা। এজন্য আমাদের ব্যবসা বাড়াতে হবে। আর ব্যবসা বাড়াতে পণ্যের মানের পাশাপাশি সেবার মান বাড়াতে হবে। এখন অনেক কোম্পানিই আসছে যারা সেবাগ্রহণ করতে চাচ্ছে। আশা করি, আমরা সেবা রফতানির ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে উল্লেখযোগ্য স্তরে পৌঁছাতে পারবো। এক্ষেত্রে বাণিজ্যমেলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

বিজয় ভট্টাচার্য বলেন, বাণিজ্যমেলায় বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ১১০টি প্যাভিলিয়ন, ৮৩টি মিনি প্যাভিলিয়ন এবং রেস্তোরাঁসহ ৪১২টি স্টলে মোট ৬৯৫টি দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। এদের মধ্যে ২২টি দেশের ৫১টি বিদেশি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। মেলায় এবারই প্রথম অনলাইনে টিকিট বিক্রি করা হয়। এতে বেশ ভালো সাড়া পাওয়া গেছে। মেলায় আসা ক্রেতা-দর্শনার্থীদের জন্য ৫টি বিশ্রামাগার ও প্রতিবন্ধীদের জন্য হুইল চেয়ার ছিল।

উল্লেখ্য, গত বছর ২৩তম আসরে ২০ মিলিয়ন ডলার বা ১৬৫ কোটি ৯৬ লাখ টাকার রফতানি আদেশ পেয়েছে বাংলাদেশি কোম্পানিগুলো। তার আগের বছর ২২তম আসরে মেলায় ২৪৩ কোটি ৪৪ লাখ টাকা বা ৩০ দশমিক ৪৩ মিলিয়ন ডলারের স্পট অর্ডার এসেছিল। ২০১৬ সালে ছিল ২৩৫ কোটি ১৭ লাখ টাকা। রাজনৈতিক সহিংসতার দু’বছর ২০১৫ ও ২০১৪ সালে রফতানির আদেশ ছিল যথাক্রমে ৯৫ কোটি ও ৮০ কোটি টাকা। তার আগের বছর ২০১৩ সালে রফতানি আদেশ এসেছিল ১৫৭ কোটি টাকা।

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: