প্রচ্ছদ / অর্থনীতি / বিস্তারিত
 

For Advertisement

600 X 120

বরাদ্দ থাকলেও টাকা ব্যয় হয়নি ১২০ উন্নয়ন প্রকল্পে

৯ মার্চ ২০১৮, ৩:০৫:৩৫

ঢাকা০৯ মার্চকারেন্ট নিউজ বিডিবরাদ্দ থাকলেও গত অর্থবছরে (২০১৬-১৭) একটি টাকাও ব্যয় করা হয়নি ১২০টি উন্নয়ন প্রকল্পে । রাজনৈতিক বিবেচনায় গৃহীত এসব প্রকল্পের ব্যাপারে এমনই রিপোর্ট চূড়ান্ত করেছে প্রকল্প তদারকি সংস্থা বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি)। রিপোর্টটি গত মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) বৈঠকে উপস্থাপন করা হয়েছে বলেও জানা গেছে।

সূত্র জানায়, চিহ্নিত ১২০টি প্রকল্পের মধ্যে গত অর্থবছরের এডিপিতে ১১৮টির জন্য ৭৭২ কোটি ৯ লাখ টাকা বরাদ্দ ছিল। সর্বোচ্চ বরাদ্দ ছিল বিদ্যুৎ বিভাগের একটি প্রকল্পে, ৩৬০ কোটি টাকা। বেশকিছু প্রকল্পে সর্বনিম্ন বরাদ্দ ছিল এক লাখ টাকার।

 

For Advertisement

600 X 120

এর মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক ৩১টি প্রকল্পই বিদ্যুৎ বিভাগে। গৃহায়ন ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ১৯টি, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ১০টি, রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সাতটি, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সাতটি, সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের ছয়টি, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের পাঁচটি, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের পাঁচটি, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের চারটি, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের চারটি, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের তিনটি, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের তিনটি, শিল্প মন্ত্রণালয়ের তিনটি, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের তিনটি, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের দুটি, সেতু বিভাগের দুটি এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়, কৃষি, বাণিজ্য, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা এবং নারী ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের একটি করে প্রকল্প রয়েছে।

আইএমইডি’র রিপোর্টে বলা হয়, গত অর্থবছরে যেসব প্রকল্পে এক টাকাও ব্যয় হয়নি, সেগুলো হচ্ছে- চট্টগ্রামের পারকি ও পতেঙ্গাতে পর্যটন উন্নয়ন, ঢাকার আজিমপুরে জজদের জন্য সুউচ্চ আবাসিক ভবন নির্মাণ, গুলশান-বনানী-বারিধারা লেক উন্নয়ন প্রকল্প, এনজিও ব্যুরোর অফিস ভবন নির্মাণ, ক্লিন এয়ার অ্যান্ড রেলওয়ের চিনকি-আস্তানা-আশুগঞ্জ সেকশনের উন্নয়ন, আশুগঞ্জ অভ্যন্তরীণ নদীবন্দর উন্নয়ন, ২০০টি মিটারগেজ প্যাসেঞ্জার বগি সংগ্রহ, সাসটেইনেবল এনভায়রনমেন্ট প্রজেক্ট, সৈয়দপুর ও বরিশাল বিমানবন্দরের উন্নয়ন, পশুর চ্যানেলের আউটার ড্রেজিং এবং বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের প্রধান কার্যালয় নির্মাণ প্রকল্প।

সার্বিকভাবে প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতির ২১টি কারণ চিহ্নিত করা হয়েছে। সেগুলোর মধ্যে অন্যতম- সম্ভাব্যতা যাচাই না করে প্রকল্প গ্রহণ, কর্ম ও ক্রয় পরিকল্পনা অনুযায়ী বাস্তবায়ন না করা, প্রকল্প তদারকি ও বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সক্ষমতার অভাব, ভূমি অধিগ্রহণে দীর্ঘসূত্রতা, প্রকল্প পরিচালকদের দক্ষতার অভাব, বৈদেশিক সাহায্যপুষ্ট প্রকল্পের ক্ষেত্রে দরপত্র প্রক্রিয়ায় উন্নয়ন সহযোগীদের মতামত পেতে দেরি এবং প্রকল্প চলাকালে অভ্যন্তরীণ অডিট না হওয়া ইত্যাদি।

 

For Advertisement

600 X 120

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: