প্রচ্ছদ / খেলাধুলা / বিস্তারিত

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

১২০ বলের ম্যাচে ৫৭টি ডট বল!

কারেন্ট নিউজ বিডি   ৯ মার্চ ২০১৮, ৪:০৮:১২

ঢাকা০৯ মার্চকারেন্ট নিউজ বিডিটানা লজ্জাজনক হার।প্রেমাদাসার ব্যাটিং উইকেটে ব্যাটসম্যানরা দেখালেন অমার্জনীয় ব্যর্থতা। তারপরেও নির্ভার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।সংবাদ সম্মেলনে আসলেন হাসি মুখে।ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ককে দেখে মনে হচ্ছিলো হেরে নয়, এই মাত্র ম্যাচ জিতে এসেছে তার দল।

সেই একই প্রশ্ন। কেমন এমন হচ্ছে, কেন এমন হার? এ থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর উপায়বা কী। মুখে হাসি নিয়েই মাহমুদ উল্লাহ বললেন,‘ আসলে দায় দেব ব্যাটসম্যানদেরই। কারণ, এত ভালো উইকেটে ভালো একটি পুঁজি বোলারদের দিতে পারিনি। বোলাররা অনেক চেষ্টা করেছে। রবেল, তাসকিন, মুস্তাফিজ ভালো করেছে। এটা ইতিবাচক দিক। এখন ব্যাটসম্যানরা একটু দায়িত্ব নিয়ে ভালো করতে হবে।’

For Advertisement

750px X 80px
Call : +8801911140321

‘আমার মনে হয়, ১৭০-১৮০ রানের উইকেট ছিল। আমরা নিজেরাই ভালো করতে পারিনি। উইকেট নিয়ে কোনো অভিযাগ নেই। ব্যাটসম্যনরাই কাজে লাগাতে পারিনি।’

২০ ওভারের ম্যাচে ৫৭টি ডট বল। চার ১২টি ছ্ক্কা মাত্র ৩টি। ব্যাটসম্যানরা কতটা সাহসী ছিলেন তা এই পরিসংখ্যানই পরিষ্কার করে দেয়। এত বেশি ডটবলকেই সবচেয়ে বড় সর্বনাশ মনে করছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

তিনি বলেন,‘টি-টোয়েন্টিতে মাঝের ওভারগুলোতে আমরা ধুঁকছি। অনেক বেশি ডট বল খেলছি, তার পরও উইকেট বিলিয়ে আসছি। আজকেও আমরা ভালোই শুরু করেছিলাম, কিন্তু পরে নিয়মিত উইকেট হারিয়েছি।টি-টোয়েন্টিতে মাঝের ওভারগুলোতে একটু পিছিয়ে আছি আমরা। বরাবরই এখানে খেই হারিয়ে ফেলি। সিঙ্গেল নিতে পারছি না, ডাবলসও না। পাশাপাশি বাউন্ডারিও হচ্ছিল না আজ। একই সঙ্গে উইকেটও দিয়ে এসেছি।’

গত কমাস ধরে টানা খারাপ অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে দল। চাপ এবং সংশয় যেন ব্যাটসম্যানদের পেয়ে বসেছে। এই সংশয়ের কারণই কী এত বেশি ডট বল? রিয়াদ বললেন,‘আমার মনে হয়, হ্যাঁ সংশয় ছিল। ডট বলগুলোতে সেটিরই প্রমাণ মিলেছে। আমি নিজেই যেমন মনে হয় ৭টি ডট বল খেলেছি। তার পর আউট হয়ে গেছি। এই জায়গাটায় আমাদের কাজ করতেই হবে। এত ডট বল খেলে এগিয়ে যাওয়া কঠিন। শুধু বাউন্ডারির ওপর নির্ভর করে চলবে না। সিঙ্গেলের পাশাপাশি বাউন্ডারি হলে ব্যাটসম্যানরা চাপে থাকে না

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: