প্রচ্ছদ / খুলনা / বিস্তারিত

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

নড়াইলে প্রতিপক্ষের হামলায় ২০টি বাড়িঘর ভাংচুর

কারেন্ট নিউজ বিডি   ২৫ মার্চ ২০১৮, ৩:১৫:৫০

ঢাকা, ২৫ মার্চকারেন্ট নিউজ বিডি : নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার আমাদা গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় ২০টি বাড়িরঘর ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে ভুক্তভোগীদের দাবি অন্তত ৩০টি বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়েছে।

হামলাকালে বোমা বিস্ফোরণ ও গুলি বর্ষনেরও অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার সময় শিশুসহ তিনজন আহত হয়েছে। শনিবার (২৪ মার্চ) ভোরে এ হামলার ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আমাদা গ্রামের আবুল কাশেম খান এবং আলী আহমেদ খান গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এর জের ধরে শনিবার দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আবুল কাশেম খানের সমর্থকদের বাড়িতে হামলা চালায় প্রতিপক্ষ আলী আহমেদ খানের লোকজন।

For Advertisement

750px X 80px
Call : +8801911140321

ক্ষতিগ্রস্থরা জানান, শনিবার ফজরের আযানের পর কেউ নামাজ পড়েছে, কেউ পড়ছিল। শিশুরা সবাই ঘুমিয়ে ছিল। এসময় আলী আহম্মেদ খার লোকজন ডাক ছেড়ে দিয়ে তাদের বাড়িঘরের ওপর হামলা করে। এসম বাড়িঘর কুপিয়ে ও ভাংচুর চালায় এবং বেশ কয়েকটা বোমা মারে এবং গুলি করে। যাওয়ার সময় ঘরের মধ্যে গিয়ে মুল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে গেছে। এসময় শিশুরা ভয়ে কান্নাকাটি করতে থাকে। মহিলাদের মারধর করা হয়। এদের মধ্যে ৩জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্থরা জানান, তাদের পক্ষের কাশেম খা, আলীম খা, খাজা শেখ, রাজা শেখ, মুক্তার শেখ, মাসুম শেখ, যুব শেখ, সাইদুর শেখ, লিটন শেখ, বাদশা শেখ, ইরাইদুল খা, বাবুল খা, আনিচ খা, ফজলে খা, বজলে খা, ইমরুল খা, আবুল খা, মাসুদ খা, আজাদ মোল্যা, মনির মোল্যা, কুটি মোল্যা, আছাদ মোল্যা, মিজানুর শেখ, নেংটুু খা, বাবুল খা, ইউপি সদস্য জিহাদ মোল্যার বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়েছে। এসময় বাবুল খার স্ত্রী বেদানা বেগম, সাইদুর শেখের স্ত্রী সালমা বেগম, মাসুম শেখের ৪ বছরের শিশু কন্যা মাহিয়া আহত হয়েছে।

জানা গেছে, এর আগে গত ১০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় দুইপক্ষের সংঘর্ষে অন্তত পাঁচটি বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ শটগানের ১৪ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে।
এছাড়া গত দুই মাসে আমাদা গ্রামে দুইপক্ষের মধ্যে চারবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় বাড়িঘর ভাংচুরসহ কয়েকজনকে কুপিয়ে জখম করা হয়। পুলিশ মোতায়নের মধ্যেই দুইপক্ষের এ সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটছে। প্রায় ৪ মাস যাবত আমাদা গ্রামে পুলিশ মোতায়েন থাকলেও তা কোন কাজে আসছে। মাঝে মধ্যেই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে দুইপক্ষ।

ঘটনাস্থলে দায়িত্বরত লোহাগড়া থানার এস আই আব্দুল হক জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ আমাদা গ্রামের সামাজিক দ্বন্দ ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুটি গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়ে আসছে। শনিবার ভোরে হামলার খবর পাওয়ার পর পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে আসার পর হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: