প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

অনুমতি না পেয়ে বিএনপি’র সমাবেশ স্থগিত

কারেন্ট নিউজ বিডি   ২৯ মার্চ ২০১৮, ৪:২৯:১০

ঢাকা, ২৯ মার্চকারেন্ট নিউজ বিডিবিএনপি’র চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ডাকা বৃহস্পতিবারের সমাবেশ স্থগিত করেছে দলটি। প্রশাসনের অনুমতি না পাওয়ায় এ সমাবেশ স্থগিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী।

বুধবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান তিনি।

For Advertisement

750px X 80px
Call : +8801911140321

উল্লেখ্য, গত পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে চতুর্থবারের মতো সমাবেশটি স্থগিত করেছে দলটি।

২৯ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির সমাবেশ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আগের দিন বুধবার বিকালে নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে দলের সিদ্ধান্ত জানান বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এই সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছিল বিএনপি। কিন্তু প্রশাসন থেকে অনুমতি না পাওয়ায় সমাবেশ স্থগিত করা হলো। এছাড়া, পূর্ব ঘোষিত রাজশাহীর সমাবেশ ৪ এপ্রিলের পরিবর্তে ১৫ এপ্রিল নির্ধারণ করা হয়েছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

রিজভী বলেন, সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাকায় বিএনপির পক্ষ থেকে ১২ মার্চ ও ১৯ মার্চ জনসভা করতে পুলিশের অনুমতির জন্য আবেদন করা হয়। কিন্তু সরকারের নির্দেশে নিরাপত্তার অজুহাতে বিএনপিকে জনসভার অনুমতি দেয়নি ডিএমপি। এরপর আবারও ২৯ মার্চ জনসভা করতে বেশ কয়েক দিন আগে বিএনপির পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়।

তিনি বলেন, গত মঙ্গলবার দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে বিএনপির একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করার পর আমরা বিশ্বাস করতে চেয়েছিলাম সরকার জনসভার অনুমতি দেবে। কিন্তু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গতকালই সাংবাদিকদের বলেছেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জনসভার অনুমতি দেবে পুলিশ। পুলিশের প্রধান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তার এই বক্তব্যে এটা প্রমাণিত হয়েছে, দেশ চালাচ্ছে পুলিশ। আওয়ামী লীগ ক্ষয়িষ্ণু রাজনৈতিক শক্তিতে পরিণত হয়েছে বলেই দেশটা এখন পুলিশের কব্জায়।

বিএনপির এই মুখপাত্র আরো বলেন, সোহরাওয়ার্দীতে জনসভার অনুমতির জন্য অপেক্ষা করলেও এখন পর্যন্ত আমরা জনসভার অনুমতি পাইনি। বিএনপির মতো একটি সর্ববৃহৎ দলকে শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অনুমতি না দেয়া স্বৈরাচারী আচরণেরই বহিঃপ্রকাশ।

তিনি বলেন, গত ২৪ মার্চ গণতন্ত্র হত্যার দিনে সরকার প্রধানের পৃষ্ঠপোষকতায় জাতীয় পার্টিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে দেয়া হয়েছে। এই ঘটনায় গণতন্ত্রকে অপমানিত ও লাঞ্ছিত করা হলো। এছাড়াও সম্প্রতি আওয়ামী জোটের ছোট ছোট আরো অনেক দলকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি দেয়া হয়েছে। কিন্তু আমাদের দেওয়া হচ্ছে না।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আবদুস সালাম, আবুল খায়ের ভূইয়া, কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব, আবদুস সালাম আজাদ, আব্দুল আওয়াল খান, আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজধানীর জনসভার জন্য ব্যবহার করা ময়দানে বিএনপির সমাবেশ এ নিয়ে স্থগিত হলো চার দফা। এর আগে গত ২২ ফেব্রুয়ারি, ১২ মার্চ এবং ১৯ মার্চ এখানে সমাবেশ করতে চেয়েও পারেনি বিএনপি। কারণ, পুলিশ তাদেরকে অনুমতি দেয়নি।

এই পরিস্থিতিতে ২৭ মার্চ সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে দেখা করে অনুমতির বিষয়ে কথা বলেন বিএনপির তিন নেতা নজরুল ইসলাম খান, হাফিজ উদ্দিন আহমেদ এবং আলতাফ হোসেন চৌধুরী।

বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে ঢাকার পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়ার সঙ্গে কথা বলবেন বলে বিএনপি নেতাদেরকে জানান। তবে তিনি জানান, এই অনুমতি দেবেন পুলিশ কমিশনার। কাজেই তিনিই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

বৈঠক শেষে নজরুল ইসলাম খান বলেন, মন্ত্রীর বক্তব্য তাদের কাছে ইতিবাচক মনে হয়েছে এবং তারা এবার অনুমতি পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী।

তবে রুহুল কবির রিজভী জানান, তাদেরকে জনসভা করার অনুমতি দেয়নি সরকার। তিনি বলেন, বিএনপির মতো এত বড় রাজনৈতিক দলকে শান্তিপূর্ণ জনসভার অনুমতি না দেওয়া সরকারের স্বৈরাচারী আচরণের বহিঃপ্রকাশ।’

বর্তমান সরকার আন্তর্জাতিকভাবে স্বৈরাচারী হিসেবে যে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে, এই সমাবেশের অনুমতি না দেয়ায় সেটা সত্য বলেই প্রমাণ হলো।

এ সময় আগামী ৪ এপ্রিল রাজশাহীতে বিএনপির সমাবেশ পিছিয়ে ১৫ এপ্রিল করার ঘোষণাও দেন বিএনপি নেতা রিজভী।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভার অনুমতি না পাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করা বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান ঢাকাটাইমসকে বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য আমাদের কাছে ইতিবাচক মনে হয়েছিল। সে কথাই আপনাদেরকে বলেছিলাম। মন্ত্রী এখন টাঙ্গাইল সফরে আছেন। সেখান থেকে ফিরলে তার সঙ্গে আমরা আবার কথা বলব।

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: