প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

দাম্ভিকতা পরিত্যাগ করে সংলাপে বসুন: ফখরুল

কারেন্ট নিউজ বিডি   ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪:৪৮:০৯

ফাইল ছবি

ঢাকা, ০৬ সেপ্টেম্বর, কারেন্ট নিউজ বিডি : সরকারের পক্ষ থেকে বার বার সংলাপ বা আলোচনায় বসার প্রস্তাব নাকচ করা হলেও বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ফের সংলাপের আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, দাম্ভিকতা পরিত্যাগ করে জনগণের জন্য মানুষের জন্য কথা বলুন, সংলাপ বসুন। কথা বলুন শান্তিপূর্ণ একটা রাস্তা খুঁজে বের করতে , যেন দেশে একটা সুষ্ঠু-নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে।

বুধবার (৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে নাগরিক ঐক্য আয়োজিত ‘ইভিএম বর্জন: জাতীয় নির্বাচন ও জাতীয় ঐক্য’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি কথা বলেন।

For Advertisement

750px X 80px
Call : +8801911140321

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার যে মামলার বিচার, সেটি স্থানান্তর করা হয়েছে ঢাকা কেন্দ্রিয় কারাগারে, যা এরইমধ্যে পরিত্যক্ত হয়েছে। এতে সংবিধানের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন হয়েছে। প্রচলিত আইনের লঙ্ঘন হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা দেখেছি ১৯৭১ সালে এই ধরণের ক্যামেরা ট্রায়াল হয়েছে। আজ এই স্বাধীন বাংলাদেশে তাকে আদালতে বিচার করা হবে। তারা বলেন ইভিএম করবেন। কেন ইভিএম করতে চান? ইভিএম তো বেশির‌ভাগ দেশ থেকে বাতিল হয়ে গেছে। কারণ এটি সহজেই ম্যানুপুলেট করা যায়। একটা ভোটকে ১০ টা করা যায়, ১০০ টা করা যায়, সব করা যায়। আজকে সেই ইভিএম করতে চান। আজকে সব গ্রেফতার করছেন হাজার হাজার মানুষকে। ভয় পান কেন এত মানুষকে? একটা সুষ্ঠু অবাধ নির্বাচন দিতে কেন এত ভয়?’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, কারাগারের আদালতে আজকে (খালেদার) আইনজীবীরা যাননি। সেখানে একটা ছোট্ট কুঠুরিতে আদালতের ব্যবস্থা করা হয়েছে। দেশনেত্রীকে জোর করে হু্ইল চেয়ারে করে নিয়ে আসা হয়েছিল। দেশনেত্রী বলেছেন, আমি জানি এখানে ন্যায়বিচার পাওয়া যাবে না। আমি অসুস্থ। আপনারা বিচার যা করার করেন, আমি এখানে আর আসতে পারবো না। এই হচ্ছে বিচারের আসল চেহারা।

নিরপেক্ষ সরকারে অধীনে নির্বাচন দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সংসদ ভেঙে দিতে হবে। নির্বাচন কমিশনকে পুনর্গঠন করতে হবে। জনগণের নিরাপত্তার জন্য সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে।

ইভিএমে ভোট কেন করতে চান, সে বিষয়ে সরকারকে প্রশ্ন করে তিনি বলেন, এটা সহজে ম্যানিপুলেট (নিজেদের মতো করে ব্যবহার) করতে পারবেন। এটা দিয়ে ১টা ভোটকে ১০টা ভোট করা যায়।

সরকারের উদ্দেশে মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে হাজার হাজার মানুষকে গ্রেফতার করছেন। সুষ্ঠু-অবাধ নির্বাচন দিতে কেন এত ভয় পান। জনগণের ওপর কেন এতো অনাস্থা। কারণ একটাই, আপনারা আপনাদের জায়গা থেকে সরে গেছেন। আপনারা রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছেন

সভায় উপস্থিত রাজনৈতিক নেতাদের অনুরোধ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশ ও জাতির প্রয়োজনে ১৯৭১ সালে যেভাবে আমরা স্বাধীনতাযুদ্ধে এক হয়েছিলাম, আজকে বাংলাদেশকে রক্ষা করার জন্য, মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য, ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষা করার জন্য আবার আমরা ন্যূনতম কর্মসূচির ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ হই এবং বাংলাদেশকে রক্ষা করি।

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন গণফোরাম সভাপতি ও যুক্তফ্রন্টের নেতা ড. কামাল হোসেন, বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি ডা.এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আসিফ নজরুল, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রাক্তন অধ্যাপক দিলারা চৌধুরী, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির সভাপতি সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম প্রমুখ।

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: