প্রচ্ছদ / খেলাধুলা / বিস্তারিত

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

বড়দের পর ছোটদেরও স্বপ্নভঙ্গ

কারেন্ট নিউজ বিডি   ৫ অক্টোবর ২০১৮, ৫:৪৮:৫৭

এশিয়া কাপের ফাইনালে ভারতের কাছে বড়দের হারের একটা প্রতিশোধ নেওয়ার সুযোগ ছিল বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ দলের ক্রিকেটারদের। বৃহস্পতিবার (০৪ অক্টোবর) এশিয়া কাপ অনুর্ধ্ব-১৯ টুর্নামেন্টে সেমিফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হয়েও সেই প্রতিশোধ নিতে ব্যর্থ হয়েছে বাংলার যুবারা।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ভারতের দেওয়া ১৭৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ১৭০ রানেই গুটিয়ে যায় বাংলাদেশের ইনিংস। ভারত জয় পায় ২ রানে।

For Advertisement

750px X 80px
Call : +8801911140321

এর আগে বাংলাদেশের বিপক্ষে টস জিতে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেন ভারতের অনুর্ধ্ব-১৯ দলের অধিনায়ক সিমরান সিং। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা ভারতের শিবিরে শুরুতেই আঘাত হানেন বাংলাদেশের পেসার শরিফুল ইসলাম। তার দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন ওপেনার দেবদূত পাদিক্কাল। তিনি করেন মাত্র ১ রান।

দ্বিতীয় উইকেটে অবশ্য এই বিপর্যয় সামলে উঠেছিল ভারত। ৬৬ রানের জুটি গড়েন জাইসওয়াল আর অনুজ রাওয়াত। ৩৫ রান করা রাওয়াতকে ফিরিয়ে এই জুটিটি ভেঙেছেন অধিনায়ক তৌহিদ হৃদয়। এরপরই ভারতকে কোনঠাসা করে দেন টাইগার বোলাররা।

রিশাদ হোসেনের লেগস্পিনে শুন্য রানেই সাজঘরে অধিনায়ক সিমরান সিং। এরপর জোশ রাথডকে (২) নিজের দ্বিতীয় শিকার বানান হৃদয়। পরের ওভারে সেট ব্যাটসম্যান জাইসওয়ালকে (৩৭) বোল্ড করে দেন রিশাদ।

৭৭ রানের ৫ উইকেট হারিয়ে যখন ধুঁকছিল তারা, তখন আইয়ুস বাদনির সাথে ৫৯ রানের জুটি গড়েন সমীর চৌধুরী। তবে বাদনিকে (২৮) আউট করে এই জুটি ভাঙেন মিনহাজুর রহমান। তার কিছু পরে ব্যক্তিগত ৩৬ রানের মাথায় শরিফুলের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন সমীরও। এরপর টেল এন্ডাররা ৪৯.৩ ওভারে ১৭২ রান পর্যন্ত টেনে নিয়ে যেতে পারে।

বাংলাদেশের হয়ে ১৬ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন শরিফুল ইসলাম। এছাড়া ২টি করে উইকেট নিয়েছেন মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, রিশাদ হোসেন ও তৌহিদ হৃদয়।

জবাবে ১৭৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ৬৫ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে বিপযয়ে পড়ে বাংলাদেশ। ৬ এবং ২ রান করে সাজঘরে ফেরেন দুই ওপেনার নাবিল এবং সাজিদ। ৮ রান করে বিদায় নেন অধিনায়ক তৌহিদ। এরপর মাহমুদুল হাসান জয় শামিম হোসেনকে সাথে নিয়ে দলকে টেনে নিতে চেষ্টা করেন। কিন্তু ২৫ রান করে দেশাইয়ের বলে ফিরে যান জয়। দেশাইয়ের বলেও আউট হয়ে সাজ ঘরে ফিরে আসেন রিসাদ।

এরপর দলের হাল ধরেন উইকেট কিপার আকবর আলি ও শামিম হোসেন। দুইজনে মিলে গড়েন ৮২ রানের জুটি। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করে শামিম। পাঁচ চার এবং দুই ছয়ে ৫৯ রান করেন তিনি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪৫ রান করেন আকবর। এই জুটি আউট হবার পর স্বাগতিকদের আর কোনও ব্যাটসম্যান ইনিংস বড় করতে পারেননি। ফলে ৪৬.২ ওভারে ১৭০ রানে আটকে যায় বাংলাদেশের ইনিংস।

ভারতের হয়ে মুহিত জাংরা ও সিদ্ধার্থ দিশাই ৩টি, হারাশ তায়াগি ২ ও ১টি উইকেট নেন অজয়।

For Advertisement

750px X 80px Call : +8801911140321

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: