পরিবর্তন আসছে ইন্টারনেটের দামে

৬ অক্টোবর ২০১৮, ৫:২০:৪৭

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যেই ইন্টারনেট খরচ কমতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। এজন্য তিনি ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদেরকে দুই সপ্তাহ অপেক্ষা করার পরামর্শ দিয়েছেন।

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে বিভিন্ন অপারেটরগুলো তাদের ইন্টারনেট প্যাকেজ অফার করবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, সেই অফার পর্যালোচনা করলেই আমরা ইন্টারনেটের দাম কমেছে কি না বুঝতে পারবো।

মন্ত্রী বলেন, এখন এমএনপি (নম্বর ঠিক রেখে অপারেটর বদলের পদ্ধতি) সেবা চালু হয়েছে। ফলে মোবাইল গ্রাহকরা নিজের স্বার্থ বুঝে ভালো অপারেটরের কাছে চলে যাবে। এটাই স্বাভাবিক।

ইন্টারনেটের দাম কমানোর যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, তা এখনও বলবৎ আছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, কস্ট মডেলিং করে দেখা হবে ইন্টারনেটের ন্যায্য চার্জ কত হতে পারে। ওটা দেখে ‘স্ট্যান্ডার্ড প্রাইস’ ঠিক করা হবে।

ভয়েস কলের দাম বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এখন বাকি থাকে ইন্টারনেট। যেহেতু ইন্টারনেটের দাম এখনও বেঁধে দেওয়া হয়নি। ফলে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো ইন্টারনেটের দাম কমাতে বাধ্য হবে বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, ২০০৭ সালে দেশে প্রতি এমবিপিএস ব্যান্ডউইথের দাম ছিল ৭২ হাজার টাকা। বর্তমানে এর দাম ৬০০ টাকায় নেমে এসেছে। ব্যান্ডউইথের দাম কয়েক দফা কমানোর পরও সেই অর্থে ইন্টারনেটের দাম উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কমেনি। এই সময়ের মধ্যে মাত্র একবার ইন্টারনেটের দাম কমায় সরকার। ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের অব্যাহত দাবির মুখে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে ইন্টারনেটের দাম কমায়।

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: