দেড় লাখ টাকায় রাবিতে ভর্তির চুক্তি, অবশেষে গণধোলাই

১৯ অক্টোবর ২০১৮, ৬:৫৭:১৮

১ লাখ ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে সরাসরি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির চুক্তি করে ফেঁসে গেল আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির এক সাবেক শিক্ষার্থী গোলাম রাব্বানী। সেই শিক্ষার্থী আশ্বাস দেন ৫০ হাজার টাকায় মিলবে প্রশ্ন আর ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা দিলে সরাসরি ভর্তি এমন প্রতিশ্রুতির দিয়ে নিজেই গণধোলাইয়ের শিকার হন।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের প্রথমবর্ষের রিফাত আরা মুন নামের এক পরীক্ষার্থীকে এমন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি। বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে প্রতিশ্রুতির অগ্রিম ২০ হাজার টাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিতে এসেছিলেন রাব্বানী। কিন্তু ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর চতুরতায় ফেঁসে গেছেন তিনি। রিফাত আরা মুনের বন্ধুরা ধরে গণপিটুনী দিয়ে প্রতারক গোলাম রাব্বানীকে থানায় দিয়েছে।

গোলাম রাব্বানীর বাড়ি রাজশাহীর বাগমারা থানায়। ২০১৬ সালে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি থেকে বিবিএ পাস করেন তিনি। তিনি বর্তমানে রাজশাহীর সিটি কলেজ থেকে বিবিএস ডিগ্রি করছেন।

নগরীরর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাৎ হোসেন বলেন, এক যুবককে ধরে আনা হয়েছে। সে ভর্তিচ্ছু এক শিক্ষার্থীকে টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন দিতে চেয়েছিল।

রিফাত আরা মুন ও গোলাম রাব্বানীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এক মাস আগে বাসে তাদের পরিচয় হয়। সেখানে টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন দেয়া ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করে দেয়ার মতো লবিং আছে বলে রিফাত আরা মুনকে জানায় গোলাম রাব্বানী। সেই সূত্র ধরে এক সপ্তাহ আগে রিফাত আরাকে ফোন করেন গোলাম রাব্বানী।

তখন গোলাম রাব্বানী রিফাত আরাকে জানায়, ‘যদি তুমি আমাকে ৫০ হাজার টাকা দাও, তাহলে আমি পরীক্ষার রাতে প্রশ্ন দিতে পারব। আর যদি সরাসরি ভর্তি হতে চাও তাহলে দেড় লাখ টাকা লাগবে। তাদের কথোপকথোন অনুযায়ী রিফাত আরা প্রশ্ন নেয়ার জন্য ৫০ হাজার টাকা দিয়ে প্রশ্ন নিতে রাজি হন। পরবর্তীতে রিফাত আরা মুন তার বন্ধু শেখ সৌরভকে জানায়।

রিফাত আরার বন্ধু শেখ সৌরভ জানায়, ‘আমি ও রিফাত আরা দুজনেই এবার রাবিতে ভর্তি পরীক্ষা দিব। কিছুদিন আগে রিফাত আরা আমাকে জানায় তাকে রাব্বানী নামের একজন টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন দিবে। রিফাত আরার কাছ থেকে রাব্বানীর ফোন নম্বর নিয়ে আমি যোগাযোগ করি। গত চার মাসে তার সঙ্গে আমার কয়েকবার কথা হয়েছে। সে আজকে (বৃহস্পতিবার) অগ্রিম ২০ হাজার টাকা নিতে এসেছিল।

সেই সঙ্গে আমাদের সার্টিফিকেট সঙ্গে নিতে চেয়েছিল। পরীক্ষার আগের রাতে আমাদেরকে নিয়ে গিয়ে তার কাছে রাখতে বলে আমাকে জানিয়েছিল। কিন্তু ঘটনাটি আমি অন্য বন্ধুদের জানালে তারা রাব্বানীকে আটক করে পুলিশের কাছে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। সে অনুযায়ী আজ যখন রাব্বানী ক্যাম্পাসে টাকা নিতে এসেছিল তখন তাকে আটক করে পুলিশে দেয়া হয়।

নগরীরর মতিহার থানায় গিয়ে গোলাম রাব্বানীর সঙ্গে কথা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, আমি মুঠোফোনে তাদের টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন দেয়া ও সরাসরির ভর্তি কথা বলেছিলাম। কিন্তু তাদের সঙ্গে সেটা আমি ফাজলামো করেছিলাম। আজকে তাদেরকে আমি বুঝাতে এসছিলাম যে, এসব ভুয়া। কেউ প্রশ্ন দিতে পারে না, টাকা দিয়ে কেউ ভর্তিও করাতে পারে না। কিন্তু তারা আমাকে ধরে মারধর করে পুলিশে দিল।

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: