প্রচ্ছদ / রংপুর / বিস্তারিত

রাস্তায় ময়লা ফেলে চলাচলে বাধা সৃষ্টি করার অভিযোগ

২২ অক্টোবর ২০১৮, ১:৪৮:৩৪

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ পৌর শহরের শান্তিবাগে রাস্তায় ময়লা আবর্জনা ফেলে স্থানীয়দের চলাচলের অসুবিধা সৃষ্টি কারার অভিযোগ উঠেছে পৌর কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। তবে সংশ্লিষ্ট পৌর ওয়ার্ড কাউন্সিলর বলছেন বিষয়টি মেয়র মহোদয় দেখছেন।

জানা যায়, পীরগঞ্জ পৌর শহরের শান্তিবাগ মহল্লায় ওষুধ ব্যবসায়ী মানিক এবং মিল চাতাল ব্যবসায়ী সলেমান আলীর মধ্যে জমির সীমানা নিয়ে বিরোধ হয়। এটি পৌর কর্তৃপক্ষ পর্যন্ত গড়ায় কিন্তু পৌর কর্তৃপক্ষ বিষয়টি আপোষ মীমাংসা করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। সলেমান আলীর অভিযোগ, পৌর কর্তৃপক্ষ একতরফা ভাবে সালিশ করার চেষ্টা করে। এর প্রতিবাদ করায় বুধবার তার বাড়ির গেটের সামনে রাস্তায় ময়লা আবর্জনা ফেলে পৌরসভার পরিস্কার পরিচ্ছন্নকারী কর্মীরা।

তারা ভ্যান গাড়িতে করে ময়লা আর্বজনা এনে তার বাড়ির সামনে দরজা ঘেষে রাস্তায় ফেলে রাখে। এ সময় জানতে চাইলে তারা জানায়- মেয়রের নির্দেশে সেখানে ময়লা ফেলা হচ্ছে। রাস্তায় ময়লা আবর্জনা ফেলায় সলেমান সহ ঐ এলাকায় বসবাসকারীদের চলাচলে চরম অসুবিধার সৃষ্টি হয়েছে। আবর্জনার দুর্গন্ধে আশ পাশের বাড়িতে থাকা দায় হয়ে পড়েছে। ঐ এলাকার বাসিন্দা নয়ন জানান, ওষুধের দোকানদার মানিক সব সমস্যার সৃষ্টি করেছে।

রাস্তার জন্য কোন জায়গা তো ছাড়েইনি বরং অন্যের জমিতে নিজের ঘড়ের পানি ফেলছে। সামনে রাস্তার উপর ঘড় তুলে রাস্তা সরু করে ফেলেছেন। আবারো নতুন করে ঘড় তুলছেন। এতে আরো সমস্যা তৈরী হয়েছে। এর জন্য দায়ী মানিককে কিছু না বলে পৌরসভার লোকজন হঠাৎ করেই আমাদের চলাচলের রাস্তায় ময়লা ফেলে প্রবিন্ধকতা সৃষ্টি করেছেন। এ রাস্তা দিয়ে সব সময়ই লোকজন চলাচল করে। এখন যাতায়াত করতে পারছে না। দারুন সমস্যা হচ্ছে।

আমরা এর কারণ বুঝতে পারছি না। একই রকম অভিযোগ ঐ এলাকার অনেকের। তবে মানিকের বক্তব্য- তিনি নিজের জায়গায় ঘড় তুলছেন। অন্যরা অহেতুক ঝামেলা করছে। তার নির্মানাধীন বাড়ির রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে সলেমান। মেয়রকে জানানো হয়েছে। তিনি সমাধানের চেষ্টা করেছেন। তারা মানছে না। পৌরসভা কি কারণে রাস্তায় ময়লা ফেলেছে তিনি তা জানেন না বলে জানান।

রাস্তায় ময়লা ফেলে সাধারণ মানুষের চলাচলে অসুবিধা সৃষ্টি করা প্রসঙ্গে ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ মিলন বলেন, এ বিষয়য়ে তাকে ফোন করা হয়েছিল। বিষয়টি মেয়র মহোদয় দেখছেন।

এ বিষয়ে পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক কশিরুল আলমের মতামত জানার জন্য বৃহস্পতিবার বিকালে তার মোবাইল ফোনে বারবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: