For Advertisement

750px X 80px

Call : +8801911140321

কুবিতে বাস হামলায় ১০ দিনেও গ্রেফতার হয়নি বহিরাগতরা

কারেন্ট নিউজ বিডি   ২২ অক্টোবর ২০১৮, ৩:১৫:২৫

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে হামলার ১০ দিন পার হলেও গ্রেফতার হয়নি কেউ। হামলাকারীদের পরিচয় পাওয়ার পরও বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে অজ্ঞাতনামা দশ-পনের জনকে আসামী করে মামলা করা হয়েছে। এদিকে আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার না করলে আন্দোলনে হুশিয়ারি দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, ‘কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে হামলা একবার নয় কয়েকবার ঘটেছে, কিন্তু প্রশাসন বারবার আশ্বাস দেওয়ার পরও ঘটনাগুলো ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে। এভাবে প্রতিনিয়ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বহিরাগত সন্ত্রাসীদের হাতে মার খেয়ে যাবে সেটা সাধারণ শিক্ষার্থীরা কোনোদিন মেনে নিবে না। আমরা এ ঘটনাসহ পূর্বের সকল হামলার ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।’

For Advertisement

750px X 80px
Call : +8801911140321

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মাজহারুল ইসলাম হানিফ বলেন,’আমরা শান্তি-শৃঙ্খলার কথা মাথায় রেখে ৬ ঘন্টার আলটিমেটাম দিয়েছিলাম, তার আগে পুলিশ আমাদের কাছে সময় চেয়েছিল কিন্তু পরিতাপের বিষয় তারা কথা রাখে নি। আমরা এ বিষয়গুলো নিয়ে হতাশ ও আতঙ্কের মধ্যে আছি।আমরা শীঘ্রই গ্রেফতারের দাবিতে মাঠে নামবো এবং কোন অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে প্রশাসনই দায়ী থাকবে।”

প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দীন বলেন, ‘আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কুমিল্লার কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা করেছি। এবিষয়ে পুলিশ প্রশাসন কি ব্যবস্থা নিয়েছে সেটা আমার জানা নেই। আর গ্রেপ্তার করার দায়িত্ব হচ্ছে পুলিশের। আমি উপাচার্য ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে এ বিষয়ে কথা বলবো।’

কোতোয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুস সালাম মিয়ার কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ হতে যে মামলা হয়েছে সেটি প্রক্রিয়াধীন রযেছে। মামলাটির তদন্ত চলছে। আমরা দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছি।’

উল্লেখ্য গত ১০ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বহনকারী বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সংস্থার (বিআরটিসি) একটি বাস নগরীর ধর্মপুর এলাকায় পৌঁছলে কিছু ব্যক্তি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাসটির চালক আলাউদ্দীনকে মারতে উদ্যত হয়। এ সময় বাসে থাকা শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ করলে ওই ব্যক্তিরা শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায়। হামলায় বাসের চালক আলাউদ্দীন এবং কুবির গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী দ্বীন মোহাম্মদ আহত হয়। হামলার প্রতিবাদ এবং জড়িতদের শাস্তির দাবিতে রাতে বেলতলী এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে।

For Advertisement

750px X 80px

Call : +8801911140321

কারেন্ট নিউজ বিডি'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। 

পাঠকের মতামত: